Friday, July 19, 2024

মামলা নিষ্পতিতে বিশেষ ভূমিকা পালনে সম্মাননা পেলেন বিচারকরা


২০২৩ সালে মামলা নিষ্পতিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করায় সম্মাননা পেলেন বিচারকরা।

আজ মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে তাদের সম্মাননা ক্রেস্ট দেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সহকারী নাজির আনোয়ার হোসেন।

তিনি জানান, ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মাসিক সেরা নিষ্পত্তিকারী এবং সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণকারী বিচারকদের ২৪ মার্চ আদালতের সভাকক্ষে চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিম এসব সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন।

এদিকে, আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন মাসে সেরা নিষ্পত্তিকারী এবং সবচেয়ে বেশি সাক্ষ্যগ্রহণকারী বিচারকদের সম্মাননা দেয়া হয়েছে। ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. শান্ত ইসলাম মল্লিককে সম্মাননা দেয়া হয়েছে। এছাড়া সাক্ষ্যগ্রহণে প্রথম হয়েছেন তিনি। অপরদিকে, সর্বোচ্চ সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দ্বিতীয় হয়েছেন ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী ও তৃতীয় তরিকুল ইসলাম।

মার্চ মাসে সর্বোচ্চ সাক্ষীর জন্য ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। এ ছাড়া পর্যায়ক্রমে আতাউল্লাহ ও মাহবুব আহমেদ এ সম্মানে ভূষিত হন।

এপ্রিলে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণ করেছেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিম। এছাড়া পর্যায়ক্রমে রাজেশ চৌধুরী ও মো. শেখ সাদী এই সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।

মে মাসে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন। প্রথম হয়েছেন মাহবুব আহমেদ।

অপরদিকে, জুনে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন এবং প্রথম হয়েছেন ফারাহ দিবা ছন্দা। এ ছাড়া দ্বিতীয় হয়েছেন মাহবুব আহমেদ ও তৃতীয় রাজেশ চৌধুরী।

জুলাইতে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন রাজেশ চৌধুরী এবং তিনিই প্রথম হয়েছেন। দ্বিতীয় হয়েছেন তোফাজ্জল হোসেন ও তৃতীয় সাইফুল ইসলাম।

আগস্টে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন। দ্বিতীয় হয়েছেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাকিল আহাম্মদ ও তৃতীয় হন রাজেশ চৌধুরী।

সেপ্টেম্বরে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন। প্রথম হয়েছেন মো. শাকিল আহাম্মদ, দ্বিতীয় মাহবুব আহমেদ এবং তৃতীয় হন আতাউল্লাহ।
অক্টোবরে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন। এছাড়া প্রথম অবস্থানে আছেন আতাউল্লাহ এবং দ্বিতীয় ফারজানা শাকিলা সুমু চৌধুরী।

নভেম্বরে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন। এই মাসে দ্বিতীয়তে রাজেশ চৌধুরী ও তৃতীয়তে আতাউল্লাহ সম্মাননা পান।

ডিসেম্বরে সর্বোচ্চ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সম্মাননা পেয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন। এ মাসে দ্বিতীয় মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মামুনুর রশিদ ও তৃতীয় রাজেশ চৌধুরী।

ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন সর্বোচ্চ ১৪টি ক্রেস্ট পেয়ে প্রথম হয়েছেন। এবং ৮টি ক্রেস্ট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী।

বাংলাদেশ জার্নাল/ এমএম



Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles