Monday, July 15, 2024

ধারের টাকা না দিতেই বিকাশ ব্যবসায়ীকে গলা কেটে হত্যা 


গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে অনলাইন জুয়ার পাওনা টাকা যাতে না দিতে হয়, সে কারণেই বিকাশ ব্যবসায়ী আউয়াল ইসলাম শুভকে (২২) গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে।

বুধবার (২০ মার্চ) দুপুরে গাইবান্ধা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পুলিশ সুপার মো. কামাল হোসেন। আব্দুল আউয়াল সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের বর্মতত গ্রামের হাফিজার রহমানের ছেলে। তিনি মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশ ও ফ্লেক্সিলোডের ব্যবসা করতেন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার কামাল হোসেন বলেন, আউয়াল ইসলাম শুভ বিকাশ ব্যবসায়ী হওয়ায় সে বিভিন্ন লোকের সঙ্গে বিকাশে লেনদেন করতেন। সেই সঙ্গে তিনি অনলাইন জুয়ারিদের টাকাও লেনদেন করতেন। গ্রেপ্তার আসামি শ্রী নীল বাবু চন্দ্র দাস (২৩) একজন অনলাইন জুয়ারি ও মাছ ব্যবসায়ী। তার দেওয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী, ঘটনার আগেরদিন বুধবার (১৩ মার্চ) এই নীল বাবু চন্দ্র, তার বন্ধু ইসমাইলসহ কয়েকজন শ্রীপুর ইউনিয়নের ছাপড়হাটি গ্রামের ব্যাপারী পাড়ার মোড়ে লিটনের দোকানে চা খেতে যায়। সেখানে তারা প্রতি গেম ১০০ টাকা করে মোবাইলে লুডু বাজি খেলতে থাকে। এক পর্যায়ে একজনের মোবাইলের চার্জ শেষ হলে ইফতারের পর সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে চলে যায়। এসময় আউয়াল তার বাড়ি থেকে একটি অটোরিকশায় করে লিটনের চায়ের দোকানে আসছিল। এসময় আসামিরাও পুনরায় ওই অটোরিকশায় করে সেখানে আসে এবং ওই চায়ের দোকানে বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কার প্রথম ওয়ানডে ম্যাচটি দেখতে থাকে। এসময় আউয়াল সেখানে থেকে মাঠেরহাটে তার দোকানে চলে যায়। এরপর রাত আনুমানিক দশটার দিকে আউয়াল মাঠেরহাট থেকে আসার সময় ইসমাইল তাকে রাস্তায় কথা আছে বলে দাঁড়াতে বলে। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ইসমাইল, নীল বাবু চন্দ্র আউয়ালকে পাওনা টাকা পরিশোধ করবে বলে কৌশলে পার্শ্ববর্তী মানস নদীর ধারে ভূট্টা ও ধানের জমির মাঝখানে নিয়ে যায়। সেখানে হঠাৎ ইসমাইল তার কোমড়ের পিছনে জ্যাকেটের ভিতরে থাকা ধারালো দা দিয়ে আউয়ালের মাথার নিচে ঘাড়ের উপর সজোরে আঘাত করে। এসময় আউয়াল মাটিতে লুটিয়ে পড়ে ছটফট করতে থাকলে ইসমাইল তার বুকের উপর উঠে গলা চেপে ধরে মৃত্যু নিশ্চিত করার চেষ্টা করে। এসময় সে নীল বাবু চন্দ্রকে  আউয়ালের পা চেপে ধরতে বলেন। তারপরও মৃত্যু নিশ্চিত না হওয়ায় ইসমাইল তার হাতে থাকা ধারালো দা দিয়ে গলায় দু’টি কোপ দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করেন। এসময় ইসমাইল আউয়ালের পকেট থেকে বেশ কিছু ৫০০ টাকার নোট বের করে নেন এবং নীল বাবু চন্দ্রের মোবাইল পানিতে পড়ে যাওয়ায় সেটা ঠিক করতে তাকে সাতটি ৫০০ টাকার নোট দেন। এরপর তারা পাশের একটি ড্রেনে রক্তাক্ত দা এবং নিজেদের হাত-পা ধুয়ে যার যার বাড়িতে চলে যান।

হত্যার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাবুব আলম বলেন, আউয়াল এমন একজন যুবক ছিল, কারো কাছে ১০ টাকা পেলে, সেই টাকা নিতে পায়ে হেঁটে ৫ মাইল যাওয়া লাগলেও যাবে। ইসমাইলের কাছে আউয়াল বেশ কিছু টাকা পেত। সম্প্রতি আউয়াল বাড়ির কাজ করায় টাকার প্রয়োজন ছিল। তাই সে ইসমাইলকে টাকার জন্য চাপ দিয়ে আসছিল। আর এ কারণেই তাকে হয়তো ইসমাইল হত্যা করেছে। এ ঘটনায় নীল বাবু চন্দ্রকে আটক করা হয়েছে। তার কাছেই এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। তদন্ত চলমান রয়েছে এবং মূল আসামি ইসমাইলকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (১৩ মার্চ) সন্ধ্যায় আব্দুল আউয়াল নামের ওই বিকাশ ব্যবসায়ী যুবক ইফতার শেষে বাড়ি থেকে দোকানের উদ্দেশে বের হন। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ ছিলেন। অনেক খোঁজাখুজির পরেও রাতে তার আর খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরে বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সকালে স্থানীয়রা সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের মাঠের হাট শ্মশান ঘাট সংলগ্ন একটি ধান ক্ষেতে গলা কাটা অবস্থায় আব্দুল আউয়ালের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে আব্দুল আউয়ালের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এরপর থেকেই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচনে কাজ করছিল পুলিশ।

আরও পড়ুন: গাইবান্ধায় নিখোঁজ বিকাশ ব্যবসায়ীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার



Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles