Friday, July 19, 2024

চা বিরতির আগে ব্রেক থ্রু এনে দিলেন নাহিদ


প্রথম টেস্টের সংক্ষিপ্ত স্কোর: শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংসে ৫.৪ ওভারে ১৯/১ (দিমুথ করুনারত্নে ৯*; নিশান মাদুশকা ১০) । 

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ৫১.৩ ওভারে ১৮৮/১০ (রানা ০*; জাকির ৯, শান্ত ৫, মুমিনুল ৫, জয় ১২, শাহাদাত ১৮, লিটন ২৫, তাইজুল ৪৭, মিরাজ ১১, শরিফুল ১৫, খালেদ ২২)। 

শ্রীলঙ্কা ৬৮ ওভারে প্রথম ইনিংসে ২৮০/১০ (রাজিথা ৬*; মাদুশকা ২, মেন্ডিস ১৬, করুনারত্নে ১৭, ম্যাথুজ ৫, চান্ডিমাল ৯, কামিন্দু ১০২, ধনাঞ্জয়া ১০২, প্রবাথ ১, ফার্নান্ডো ৯, কুমারা ০)

প্রথম ইনিংসে ১৮৮ রানে অলআউট হলেও লঙ্কানদের শুরুতে চাপে ফেলার কৌশলে সফল বাংলাদেশ। চা বিরতির আগে ১৯ রানে ওপেনার মাদুশকাকে সাজঘরে পাঠিয়েছেন নাহিদ রানা। তার বলে গ্লাভসবন্দি হয়ে ১০ রানে ফিরেছেন লঙ্কান ওপেনার। দ্বিতীয় সেশন শেষে লঙ্কানরা এগিয়ে ১১১ রানে।     

এর আগে খালেদ আহমেদের পর পর দুই ওভারে দুটি ব্যর্থ রিভিউ নিয়েছে বাংলাদেশ। দুটি ক্ষেত্রেই ব্যাটার ছিলেন মাদুশকা। 

১৮৮ রানে শেষ বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ব্যাটিং ব্যর্থতা সঙ্গী হয়েছে বাংলাদেশের। লঙ্কান বোলিংয়ে ১৮৮  রানে অলআউট হয়েছে তারা। তাতে সফরকারীরা লিড পেয়েছে ৯২ রানের।

অবশ্য লিডটা আরও বড় হতো, যদি না নবম উইকেটে দুই পেসার শরিফুল ও খালেদ দ্রুত গতিতে রান তুলতেন। ৩৫ বলে ৪০ রান যোগ করেছেন তারা।

দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশন থেকে বাংলাদেশ কোনও প্রতিরোধ গড়তে পারেনি। আগের দিন ৩ উইকেট হারিয়ে খেলতে নামা স্বাগতিক দল ২২ রান যোগ করে হারায় ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়ের (১২) উইকেট।

প্রথম ঘণ্টায় জয়ের পর কিছুক্ষণ খেলে আউট হন শাহাদাত হোসেনও (১৮)। কঠিন বিপদের মুহূর্তে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছেন নাইটওয়াচম্যান তাইজুল। প্রান্ত আগলে খেলে গেছেন তিনি। লাঞ্চের আগে লিটনকে নিয়ে উপহার দেন সর্বোচ্চ ৪১ রানের জুটি। সম্ভাবনাময় এই জুটি লাঞ্চের আগে ভাঙে লিটনের (২৫) বিদায়ে। দলকে তার পরেও টেনে নিতে থাকেন তাইজুল। অবশেষে বিরতির পর তার প্রতিরোধ ভেঙেছেন রাজিথা। তাতে অল্পের জন্য ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরি বঞ্চিত হয়েছেন তিনি। বিদায়ের আগে উপহার দিয়েছেন ইনিংসের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চও।

তাইজুলের বিদায়ের পরই মূলত প্রতিরোধ দুর্বল হয়ে পড়ে। মিরাজও (১১) থিতু হননি বেশিক্ষণ। দলের ১৪৭ রানে আউট হয়ে বিপদ আরও বাড়িয়ে দিয়ে গেছেন। তাতে অল্পতে ‍গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কাতেও পড়ে স্বাগতিক দল। সেখান থেকে শরিফুল-খালেদের জুটি দলের স্কোর প্রায় দুইশর কাছে নিয়ে গেছে। শরিফুল ২১ বলে দুই ছক্কায় ১৫ রানে আউট হলে ভাঙে দারুণ এই জুটি। তাদের প্রতিরোধ ভাঙতেই ১৮৮ রানে শেষ হয়েছে বাংলাদেশের ইনিংস।      

পেসার বিশ্ব ফার্নান্ডো ৪৮ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট। ৩১ রানে তিনটি নিয়েছেন লাহিরু কুমারা। আজ প্রথম সেশনের তিনটি উইকেটই নিয়েছেন তিনি। তাছাড়া কাসুন রাজিথা ৫৬ রানে তিনটি শিকার করেছেন।  

মিরাজের বিদায়ে পড়লো অষ্টম উইকেট

তাইজুলের আউটের পর প্রতিরোধ দুর্বল হয়ে পড়ে বাংলাদেশের। মিরাজও দলের বিপদে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারলেন না। রাজিথার বলে শট খেলতে গিয়ে ফার্নান্ডোকে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন ১১ রানে।  

অবশেষে তাইজুলের প্রতিরোধ ভাঙলেন রাজিথা

দ্বিতীয় দিন প্রতিষ্ঠিত ব্যাটারদের ব্যর্থতার মিছিলে লড়াই করছিলেন তাইজুল। প্রথম সেশনে নাইটওয়াচম্যান হয়েও প্রান্ত আগলে খেলছিলেন তিনি। লাঞ্চ বিরতির পর সেই তাইজুলের প্রতিরোধ ভেঙেছেন কাসুন রাজিথা। 

রাজিথার বলে গ্লাভসবন্দি হওয়া তাইজুল অল্পের জন্য ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরি মিস করেছেন। বিদায় নিয়েছেন ক্যারিয়ার সেরা ৪৭ রানে। তার ৮০ বলের ইনিংসে ছিল ৬টি চার। তাইজুলের প্রতিরোধ ভাঙায় বিপদ আরও বেড়েছে বাংলাদেশের।   

ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলেছেন তাইজুল। লাঞ্চের আগে আউট লিটন, একা লড়ছেন তাইজুল

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম দিনের ব্যাটিং ব্যর্থতা দ্বিতীয় দিনেও অব্যাহত থাকলো বাংলাদেশের। প্রথম ঘণ্টায় বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি মাহমুদুল হাসান জয় ও শাহাদাত হোসেন। তার পর লিটন-তাইজুলের ব্যাটে ভালো প্রতিরোধ গড়ে উঠেছিল। কিন্তু লাঞ্চের আগে লিটনকে ফিরিয়ে ৪১ রানের জুটি ভেঙে নিজেদের কর্তৃত্ব ধরে রেখেছে লঙ্কানরা। প্রথম সেশনের তিনটি উইকেটই নিয়েছেন কুমারা।

৩৫তম ওভারে কুমারার ভেতরে ঢুকে পড়া বলে লিটন পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছেন। বোল্ড হয়ে ফিরেছেন ২৫ রানে। তার ৪৩ বলের ইনিংসে ছিল ৪টি চার। অথচ প্রতিষ্ঠিত ব্যাটারদের ব্যর্থতার দিনে প্রান্ত আগলে লড়াই করছেন নাইটওয়াচম্যান তাইজুল ইসলাম। তিনি ৪১* রানে ব্যাট করছেন। সঙ্গে আছেন মেহেদী হাসান মিরাজ (২*)।

দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে ৩ উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। ২৬ ওভারে তুলতে পেরেছে ১০০। লাঞ্চের বিরতিতে যাওয়ার আগে প্রথম ইনিংসে তাদের স্কোর ৬ উইকেটে ১৩২ রান। তারা এখনও পিছিয়ে ১৪৮ রানে। 

প্রথম ঘণ্টায় জয়ের পর সাজঘরে শাহাদাতও

প্রথম দিনের ধাক্কা সামাল দিতে ভালো জুটির প্রয়োজন ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু দ্বিতীয় দিন সেটা করতে তারা ব্যর্থ হয়েছে। প্রথম ঘণ্টাতেই দু’জন ব্যাটারকে হারিয়ে আরও বিপদে তারা। দিনের শুরুর দিকে ফিরেছেন আগের দিনের অপরাজিত মাহমুদুল হাসান জয়। নাইটওয়াচম্যান তাইজুল অবশ্য প্রান্ত আগলে নিজের লড়াইটা অব্যাহত রেখেছেন। তাকে নিয়ে ৩০ রানের জুটি গড়েছিলেন নতুন ব্যাটার শাহাদাত হোসেন। কিন্তু বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি তার ইনিংস। কুমারার দ্বিতীয় শিকার হয়েছেন তিনি।

২১.৬ ওভারে লঙ্কান পেসারের অফ স্টাম্পের বাইরের বলটি বাড়তি বাউন্স পেয়েছিল। বল শাহাদাতের ব্যাটের কানায় লেগে জমা পড়ে প্রথম স্লিপে। তাতে ১৮ রানে থেমেছেন শাহাদাত।    

নিজের প্রথম ওভারেই জয়কে ফেরালেন কুমারা

আগের দিনই ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। দ্বিতীয় দিন দেখার ছিল মাহমুদুল হাসান জয় সেই বিপদ থেকে উদ্ধারে প্রতিরোধ গড়তে পারেন কিনা। কিন্তু নাইটওয়াচম্যান তাইজুলকে সঙ্গে নিয়ে বেশিক্ষণ টেকেনি তার প্রতিরোধ।  সকালে নিজের প্রথম ওভারে বল করতে এসে প্রথম বলেই জয়কে তৃতীয় স্লিপে তালুবন্দি করিয়েছেন লাহিরু কুমারা। অফ স্টাম্পের বাইরের বলে ব্যাট চালাতে গিয়ে এজ হয়ে জয় ১২ রানে সাজঘরে ফিরেছেন। তাতে ৪৬ বলে থেমেছে জয়ের লড়াই। 

এর আগে ভালোই লড়ছিলেন জয়-তাইজুল। দু’জনে প্রথম ৫ ওভারে তুলেছেন ২১ রান। তাদের ব্যাটেই দলের স্কোর পঞ্চাশ ছাড়িয়েছে।   

জয়, তাইজুলকে নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু বাংলাদেশের

সিলেটে সিরিজের প্রথম টেস্টে শ্রীলঙ্কাকে প্রথম ইনিংসে ২৮০ রানে থামিয়ে দিতে পারলেও স্বস্তিতে নেই বাংলাদেশ। প্রথম দিনের শেষ বিকালে খেলতে নেমে টপের তিন উইকেট হারিয়ে চাপে রয়েছে। শুরু হয়েছে দ্বিতীয় দিনের খেলা। প্রথম দিন শেষে বাংলাদেশের স্কোর ছিল ১০ ওভারে ৩ উইকেটে ৩২ রান। 

গতকাল লঙ্কান পেসারদের তোপে বিদায় নিয়েছেন জাকির হাসান (৯), নাজমুল হোসেন শান্ত (৫) ও মুমিনুল হক (৫)। ক্রিজে আছেন নাইট ওয়াচম্যান তাইজুল ইসলাম (০) ও মাহমুদুল হাসান জয় (৯)। চাপ কাটিয়ে ওঠার আশায় খেলছেন তারা।  



Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles